ম্যারাথনে হাঁসের দৌড় প্রধান খবর

ম্যারাথনে হাঁসের দৌড় প্রধান খবর

ম্যারাথনে হাঁসের দৌড় প্রধান খবর

ম্যারাথনে হাঁসের দৌড় প্রধান খবর, যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক সিটিতে প্রতি বছর ম্যারাথন অনুষ্ঠিত হয়।

এতে দেশ-বিদেশের হাজার হাজার প্রতিযোগী অংশ নেন। কিছু অদ্ভুত কারণে, এই বছরের নিউইয়র্ক

ম্যারাথন স্মরণীয় হয়ে থাকবে। কারণ, এবার প্রতিযোগীদের সঙ্গে ম্যারাথন দৌড়ে যোগ দিল একটি হাঁস! ম্যারাথন

প্রতিযোগীদের পাশাপাশি হাঁসের দৌড়ের ভিডিও অনলাইনে ভাইরাল হয়েছে।মার্কিন সাময়িকী

নিউজউইক জানিয়েছে, গত রোববার নিউইয়র্ক ম্যারাথন অনুষ্ঠিত হয়। এতে দেশ-বিদেশের প্রায় ১০ হাজার

প্রতিযোগী অংশ নেন। এই বছরের ইভেন্টে প্রতিযোগীরা নিউইয়র্কের রাস্তায় ৪২ কিলোমিটারেরও

বেশি দৌড়েছেন।যাইহোক, বিপুল সংখ্যক প্রতিযোগী, জমকালো আয়োজন – যা সকলের নজর কেড়েছিল তা

হল একটি ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপের টিকিট প্রকাশের একটি ছোট ভিডিও।

আরও নতুন নিউস পেতে আমাদের সাইট:ukhealthz.xyz

ম্যারাথনে হাঁসের দৌড় প্রধান খবর

ভিডিওটিতে ম্যারাথন দৌড়বিদদের নিউইয়র্কের রাস্তায় দেখা যাচ্ছে। আর তাদের পাশেই ছুটছে একটি হাঁস! সাদা হাঁসের পায়ে দৌড়ানোর উপযোগী ছোট লাল জুতা (হাঁসের জুতা)ও থাকে। ভিডিওটি প্রকাশের ২৪ ঘন্টারও কম সময়ে, ২.৭ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ এটি দেখেছে। শুধু টিক নয়, ভিডিওটি ইউটিউবেও প্রকাশ করা হয়েছে। নিউজউইকের মতে, হাঁসটির নাম ‘উইঙ্কল দ্য ডাক’। হাঁসটি ম্যারাথন দৌড়বিদদের সাথে নিউইয়র্কের রাস্তায় প্রতি চার মিনিটে দৌড়ায়। এ সময় প্রতিযোগী ও রাস্তার দুই পাশে জড়ো হওয়া দর্শকদের হাঁসের দৌড় দেখে উচ্ছ্বসিত হতে দেখা যায়।যাইহোক, এই বছরের নিউ ইয়র্ক ম্যারাথনে হাঁসের দৌড় একটি আনুষ্ঠানিক বিষয় ছিল না। প্রতিযোগিতায় জয়ের জন্য হাঁস দৌড়ে যায়নি। এমনকি হাঁসও এই ইভেন্টের নিবন্ধিত প্রতিযোগী নয়।

অনলাইন প্রকাশনার জন্য একটি ভিডিও

তৈরি করতে হাঁসটিকে ম্যারাথন দৌড়বিদদের পাশে রেখে দেওয়া হয়েছিল।হাঁস ইতিমধ্যে স্টারডম পেতে শুরু করেছে। এর নামে টিকটক ও ইউটিউব চ্যানেল খোলা হয়েছে। ওইসব চ্যানেলে ম্যারাথন দৌড়ের ভিডিও আপলোড করা হয়েছে। অনেক পুরানো ভিডিও আছে।হু হু অনুসারী বাড়ছে।কার্টিস মাইনাস মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আলাবামায় জন্মগ্রহণ করেন। কিন্তু দশটা বাচ্চার মতো সে জন্মায়নি। কার্টিস তার মায়ের গর্ভে মাত্র পাঁচ মাস (২১ সপ্তাহ) কাটিয়ে দিনের আলো দেখেছিলেন। ওজন ছিল মাত্র ৪২০ গ্রাম। আর সে কারণেই গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে সবচেয়ে অপরিণত নবজাতক হিসেবে নাম লেখানো হয়েছে তার।বিবিসি অনুসারে, কার্টিসের জন্মের ১৮ মাস হয়ে গেছে। এখন সে মোটামুটি সুস্থ। সাধারণত গর্ভধারণের ৪০ সপ্তাহ পরে শিশুর জন্ম হয়। সেই অর্থে, কার্টিস ১৯ সপ্তাহ আগে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস বলছে

তাদের জানা মতে, জন্মের আগে আর কোনো শিশু এতদিন বাঁচেনি।গত বছরের ৪ জুলাই হাসপাতালে যমজ সন্তানের জন্ম দেন মিশেল বাটলার। কার্টিস বেঁচে যায়। তবে তার সঙ্গে জন্ম নেওয়া আরেকজন বেঁচে যাননি। সময়ের আগে জন্ম নেওয়া শিশুদের বেঁচে থাকার সম্ভাবনা কম থাকে।কার্টিস অবশ্য ভাগ্যবান ছিলেন। জন্মের পরপরই তাকে নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করা হয়। টানা তিন মাস ভেন্টিলেশনে রাখা হয়। তাকে শেখানো হয়েছিল কীভাবে শ্বাস নিতে হয় এবং মুখ দিয়ে খেতে হয়। কার্টিস ২৬৫ দিন হাসপাতালে কাটিয়ে চলতি বছরের এপ্রিলে দেশে ফিরে আসেন।কার্টিসের আরও তিন ভাইবোন আছে। তারা সবাই বয়স্ক। “যে মুহুর্তে আমি কার্টিসকে বাড়িতে নিয়ে গিয়েছিলাম এবং আমার অন্যান্য বাচ্চাদের অবাক করে দিয়েছিলাম তা আজীবন মনে থাকবে,” তাদের মা মিশেল বলেছিলেন।