ভারতে শীঘ্রই অনুমোদন পাবে করোনা ট্যাবলেট

ভারতে শীঘ্রই অনুমোদন পাবে করোনা ট্যাবলেট

ভারতে শীঘ্রই অনুমোদন পাবে করোনা ট্যাবলেট

ভারতে শীঘ্রই অনুমোদন পাবে করোনা ট্যাবলেট, ভারত করোনা চিকিৎসায় দুটি মুখের ওষুধ ব্যবহারের জন্য

জরুরি অনুমোদন দিতে চলেছে। এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের ওষুধ কোম্পানি মার্কের মালনুপিরাভি ট্যাবলেট

শিগগিরই অনুমোদন পাবে। ফাইজারের প্যাক্সলোভিড ট্যাবলেটগুলিও বিবেচনা করা হচ্ছে। তবে এটি অনুমোদন

হতে কিছুটা সময় লাগবে। বুধবার এনডিটিভিকে জানিয়েছেন ভারতের কোভিড স্ট্র্যাটেজি গ্রুপ-সিএসআইআর-এর

চেয়ারম্যান রাম বিশ্বকর্মা।এই মুহূর্তে করোনারি হৃদরোগ প্রতিরোধে টিকা দেওয়ার ওপর জোর দেওয়া

হচ্ছে। তবে আগামী দিনে ভ্যাকসিনের চেয়ে ওরাল ট্যাবলেট বেশি গুরুত্বপূর্ণ হবে বলে মনে করেন

রাম বিশ্বকর্মা। তিনি বলেন, মুখে খাওয়ার ট্যাবলেট পরিস্থিতি বদলে দেবে।সিএসআইআর-এর প্রধান

মনে করেন, করোনা চিকিৎসায় মুখের ওষুধ আবিষ্কারের মাধ্যমে ভাইরাসের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে গেছে।

আরও নতুন নিউস পেতে আমাদের সাইট:ukhealthz.xyz

ভারতে শীঘ্রই অনুমোদন পাবে করোনা ট্যাবলেট

তিনি আশ্বাস দেন, ‘আমার মনে হয় মালনুপিরাভি আমাদের নাগালের মধ্যেই হতে চলেছে। পাঁচটি কোম্পানি ওষুধ প্রস্তুতকারকের সঙ্গে কথা বলছে। আমার অনুমান যে মলনুপিরাভির যে কোনও দিন অনুমোদন পাবে। ‘এদিকে, ফাইজার বলেছে যে এর প্যাক্সলোভিড ট্যাবলেটগুলি ক্লিনিকাল ট্রায়াল অনুসারে, করোনারি হৃদরোগের পরে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া এবং মৃত্যুর ঝুঁকি ৬৯ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে দেয়। রাম বিশ্বকর্মাও এই ওরাল ট্যাবলেট নিয়ে কথা বলেছেন। তিনি বলেন, পাঁচটি কোম্পানি মার্কের সঙ্গে যোগাযোগ করছে। তারা ওষুধ তৈরির জন্য বেশ কয়েকটি কোম্পানিকে লাইসেন্স দিয়েছে এবং একই কাজ করবে। কারণ, ওষুধ উৎপাদনে তাদের নির্ভর করতে হয় ভারতের ওপর।করোনার মৌখিক ওষুধগুলি ঝুঁকিপূর্ণ প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য ব্যবহার করা হবে, বলেছেন রাম বিশ্বকর্মা।

তিনি বলেন প্রাথমিকভাবে মালনুপিরাভিরের

মাধ্যমে করোনার চিকিৎসায় দুই হাজার থেকে ৪ হাজার টাকা খরচ হবে। পরে দাম নেমে আসবে ৫০০ থেকে এক হাজার টাকায়।ভারতের মণিপুর রাজ্যে সন্ত্রাসী হামলায় কর্নেল পদমর্যাদার এক সেনা কর্মকর্তা তার স্ত্রী ও সন্তানসহ নিহত হয়েছেন। শনিবার সকাল ১১টার দিকে মিয়ানমার সীমান্তবর্তী মনিপুরের চুরাচাঁদপুর জেলায় হামলায় আরও চার সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন।নিহত কর্নেল বিপ্লভ ত্রিপাঠি ৪৭ তম আসাম রাইফেলসের কমান্ডিং অফিসার ছিলেন। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির খবরে বলা হয়, ক্যাম্প পরিদর্শন থেকে ফেরার পথে তার কনভয় হামলার শিকার হয়। ঘটনাটিকে সাম্প্রতিক সময়ে ওই এলাকায় সবচেয়ে ভয়াবহ হামলা হিসেবে উল্লেখ করা হচ্ছে।একটি বিবৃতিতে আসাম রাইফেলস বলেছে যে ৪৭ তম আসাম রাইফেলসের কমান্ডিং অফিসার কর্নেল বিপ্লভ ত্রিপাঠি সহ পাঁচজন সেনা কর্মী দায়িত্ব পালনে তাদের জীবন উৎসর্গ করেছেন।

কমান্ডিং অফিসারের স্ত্রী ও সন্তানরাও

নিহত হয়।কোনো গোষ্ঠী হামলার দায় স্বীকার করেনি। তবে, মণিপুর-ভিত্তিক বিচ্ছিন্নতাবাদী দল পিপলস লিবারেশন আর্মি (পিএলএ) এই হামলার পিছনে রয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে, পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। তাদের মতে, ওই এলাকায় সক্রিয় অন্তত চারটি বিচ্ছিন্নতাবাদী দল হামলার সঙ্গে জড়িত ছিল। দুপুরের কিছুক্ষণ পর পুলিশের একটি কনভয়ের সামনে বোমা হামলা চালায়। পরে দুই পক্ষের মধ্যে ব্যাপক গোলাগুলি হয়।এ ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মণিপুরের মুখ্যমন্ত্রী এন বীরেন সিং বলেছেন, সন্ত্রাসীদের ধরতে অভিযান চালানো হচ্ছে।ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলির মতো মণিপুরেও বেশ কয়েকটি সশস্ত্র বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠী সক্রিয় রয়েছে৷ রাজ্যটি চীন, মায়ানমার, বাংলাদেশ এবং ভুটানের সাথে সীমান্ত ভাগ করে। সন্ত্রাসবাদ ও বিচ্ছিন্নতাবাদীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য ভারত কয়েক দশক ধরে সীমান্তে সেনা মোতায়েন করেছে।