What Are Mudras, And How Can They Help You Save Money?

Have you ever wondered why some people are so good at managing their money? Are they born with a natural talent for saving and spending? Or is it something that can be learned with practice? There are a lot of factors that play a role in how well someone manages their money. However, one practice that is known to help people save money is called mudra. Mudra is a Sanskrit word that means “mould’ or “hand”. It’s a type of yoga position that helps you concentrate your mind on one specific part of your body. This helps you to center and calm your mind. It’s also a great way to help you save money! Let’s see how these simple mudras can help you build a positive cash flow and save more money.
What Are Mudras?
Mudras are a type of yoga position that helps you center and calm your mind. It’s also a great way to help you save money! Mudras are typically hand positions that can help you focus on your breathing, help relieve stress or anxiety, or even help you relax. There are many different types of mudras, but the most common ones include standing and sitting mudras from the Ashtanga Yoga practice: Standing Mudra: This one is easy to do and can be done anywhere in a public space like the library or at work! Stand with one leg straight out in front of you and the other bent behind you. Your hands should be on your thighs in front of your hips. Keep your arms straight so they’re parallel with the ground. Shift all of your weight onto one leg as you inhale deeply, then exhale slowly. Sitting Mudra: This one is also easy to do at home! Sit up straight with both legs stretched out in front of you. Bring your hands together in front of your chest, interlocking them with each other’s fingers while keeping them close to the chest. Keep your elbows close to the body and keep them flexed towards each other as well as remaining close to the chest. While doing this mudra, take deep breaths into both lungs while allowing them to expand fully on each inhalation and contract fully on each exhalation.
How Can Mudras Help You Save Money?
The first way that mudras can help you save money is by making you more mindful of your spending. When you focus on one part of your body, and it’s difficult to think about anything else, you’re less likely to spend impulsively. This is one reason why people who have trouble with saving often find success with mudra. The second way that mudras can help you save money is by helping to build a positive cash flow. In order to build a positive cash flow, you need to make sure that the bank account balances are always equal or greater than the amount owed. This means that if a debt comes due, you need to have enough in the bank account to cover it. If this is the case, then the balance in your bank account will stay constant and won’t fluctuate as often as it would without mudra. Mudra also helps with controlling your emotions and attaining stability while building wealth. It can be difficult to keep cultivating a good mindset when things are going well financially – especially if bills start piling up! Mudra can help alleviate these feelings and prepare yourself for any financial challenges before they happen so nothing unexpected happens and you don’t have to worry about where your next meal will come from.
Step 1: Set Up A Daily Savings Account
One way to save money is by setting up a daily savings account. This account will have a set amount of money that you are saving. It’s important to do this because it’s easy for your spending to get out of control when you don’t keep track of how much you spend on a daily basis. Set up an automatic deposit into your savings account so that you don’t even need to think about it, let alone remember it.
Step 2: Stop Over Payments And Dividends
Some of the most common mistakes that people make with their money is by overpaying for things when they don’t need to. When you overpay, you are paying more than what your item is worth and then not getting as many benefits out of it as you could. For example, if you were going to buy new clothes online, but have a coupon code for 30% off, you could save yourself a lot of money… Another way that people can overpay is when they don’t pay attention to the dividends their investments are receiving. If you invest in stocks and watch the stock price throughout the day, you would know exactly how much your shares are worth. If the value drops and your shares lose value, then it’s likely possible that some dividends will be withheld from being paid out. If this happens, then these funds could be used to purchase new items or help towards other financial obligations like mortgages or loans.
Step 3: Make Smart Investments
In order to save more money, you need to invest your hard-earned dollars wisely. Investing in property can be a great way for people to build a nice little nest egg over time. Buying a house or an apartment is an excellent way to get started with investing. But there are other ways that people can invest their money as well. One way is by purchasing stocks and bonds. This will help you diversify your investments, meaning that if one doesn’t perform as well as projected it won’t affect the other.
Step 4: Use A Cash Flow Management Tool
A cash flow management tool is like a budget, but for your money. It’s a personal finance software that helps you figure out how much you have coming in and going out of your pocket or bank account each month. They also help you see what expenses are the most important to pay off first so that you can focus on saving and investing while paying off the least important expenses. It’s easy to track where your money goes by inputting all the information into this software: income, bills, rent/mortgage, utilities, etc. Once you input everything in correctly, it will give you a running total of your monthly income vs. monthly expenses so that you know exactly where your money is going and what needs to be paid off soonest.

10 Things I Wish I knew Before Applying to a Bank Loan

When it comes to securing a loan, most people are nervous. However, because of the need to finance a business venture, a home renovation, or other important personal project, most people seek a loan. This can be a great way to boost your finances, but it can also bring with it a great deal of nervousness and uncertainty. That’s why we’ve compiled this list of things you should know before applying for a bank loan. Although the process may seem overwhelming, it will help you navigate the process and have the best chance of securing the loan for your business venture or personal project. Here are 10 things you should know before applying to a bank loan.
You don’t need a bank loan to get money.
Simply because you want to get a loan doesn’t mean you need to get one. If your venture does not benefit the majority of the public, it isn’t a necessity. What is considered essential is different from person to person, and your own individual needs come first. You don’t want to overstep your bounds and try to get a loan that you don’t really need.
You should already have a business plan.
This may seem like common sense, but especially when it comes to banks. Banks are typically more interested in your plan than your ability to pay them a large sum of cash on a loan. They want to see that your business has a solid foundation, and they want to know what you plan to do with that money. If you don’t have a business plan, you should develop one before you approach banks for funding.
Know who you’re going to approach for the loan.
This shouldn’t be too hard for a business person. You should know who you’re going to approach for funding and why you’re approaching them. You should also know who you’re not going to approach. This will help you keep your focus and avoid wasting time pursuing avenues that are irrelevant to your goals.
You need to be licensed and approved in the country in which you’re looking for a loan.
If you want to create a company, you need to do it in the country in which you’re creating the company. Often times, banks are located in the same country as the country in which the company will operate, so you need to obtain a license and obtain approval to do so. If you create a company outside of the country in which it will be based, you’ll need to be licensed in that country in addition to the country in which you’re creating the company. Even if you’re just operating a branch of the parent company, you’ll need licenses in both countries.
You should have the financial means to repay the loan.
This is an important one. Banks will ask you this question because they want to make sure that you can repay the loan. They want to make sure that you have the money to repay it, and if you don’t, they’re not going to loan it to you. If you don’t have money, you can’t promise to make it. There are many ways to increase your income. You might want to write a book, start a consulting business, or work on another side hustle. Whatever it takes to increase your monthly income, do it.
Inspect your loan application before you submit it.
You don’t want to submit an application that is full of mistakes. A bank loan application is a business document that is full of important information. They will ask you questions about your plan, your business, and your financial ability to repay the loan. They want to make sure that everything they receive from you is accurate and on its feet. Therefore, make sure that the information you are putting in the loan application is accurate. Also, make sure that you’re not submitting another loan application that includes incorrect information.
The bank will make a decision on your loan application within a few weeks.
When you submit your loan application to a bank, you will also receive a decision from them. However, this decision will be from the bank’s underwriter. The underwriter is the person who is responsible for reviewing your loan application—and there is no guarantee that they will approve you for a loan. Therefore, don’t expect to hear the bank tell you that you’ve been approved for a loan until the underwriter has made the final decision. That is why this process can take up to six weeks from the moment you submit your loan application. However, it is a process that banks like to move quickly through because they do not want to approve loans that won’t be paid back.

Health Care Reform – Why Are People So Worked Up?

Why are Americans so worked up about health care reform? Statements such as “don’t touch my Medicare” or “everyone should have access to state of the art health care irrespective of cost” are in my opinion uninformed and visceral responses that indicate a poor understanding of our health care system’s history, its current and future resources and the funding challenges that America faces going forward. While we all wonder how the health care system has reached what some refer to as a crisis stage. Let’s try to take some of the emotion out of the debate by briefly examining how health care in this country emerged and how that has formed our thinking and culture about health care. With that as a foundation let’s look at the pros and cons of the Obama administration health care reform proposals and let’s look at the concepts put forth by the Republicans?

Access to state of the art health care services is something we can all agree would be a good thing for this country. Experiencing a serious illness is one of life’s major challenges and to face it without the means to pay for it is positively frightening. But as we shall see, once we know the facts, we will find that achieving this goal will not be easy without our individual contribution.

These are the themes I will touch on to try to make some sense out of what is happening to American health care and the steps we can personally take to make things better.

A recent history of American health care – what has driven the costs so high?
Key elements of the Obama health care plan
The Republican view of health care – free market competition
Universal access to state of the art health care – a worthy goal but not easy to achieve
what can we do?
First, let’s get a little historical perspective on American health care. This is not intended to be an exhausted look into that history but it will give us an appreciation of how the health care system and our expectations for it developed. What drove costs higher and higher?

To begin, let’s turn to the American civil war. In that war, dated tactics and the carnage inflicted by modern weapons of the era combined to cause ghastly results. Not generally known is that most of the deaths on both sides of that war were not the result of actual combat but to what happened after a battlefield wound was inflicted. To begin with, evacuation of the wounded moved at a snail’s pace and this caused severe delays in treating the wounded. Secondly, many wounds were subjected to wound care, related surgeries and/or amputations of the affected limbs and this often resulted in the onset of massive infection. So you might survive a battle wound only to die at the hands of medical care providers who although well-intentioned, their interventions were often quite lethal. High death tolls can also be ascribed to everyday sicknesses and diseases in a time when no antibiotics existed. In total something like 600,000 deaths occurred from all causes, over 2% of the U.S. population at the time!

Let’s skip to the first half of the 20th century for some additional perspective and to bring us up to more modern times. After the civil war there were steady improvements in American medicine in both the understanding and treatment of certain diseases, new surgical techniques and in physician education and training. But for the most part the best that doctors could offer their patients was a “wait and see” approach. Medicine could handle bone fractures and increasingly attempt risky surgeries (now largely performed in sterile surgical environments) but medicines were not yet available to handle serious illnesses. The majority of deaths remained the result of untreatable conditions such as tuberculosis, pneumonia, scarlet fever and measles and/or related complications. Doctors were increasingly aware of heart and vascular conditions, and cancer but they had almost nothing with which to treat these conditions.

This very basic review of American medical history helps us to understand that until quite recently (around the 1950’s) we had virtually no technologies with which to treat serious or even minor ailments. Here is a critical point we need to understand; “nothing to treat you with means that visits to the doctor if at all were relegated to emergencies so in such a scenario costs are curtailed. The simple fact is that there was little for doctors to offer and therefore virtually nothing to drive health care spending. A second factor holding down costs was that medical treatments that were provided were paid for out-of-pocket, meaning by way of an individuals personal resources. There was no such thing as health insurance and certainly not health insurance paid by an employer. Except for the very destitute who were lucky to find their way into a charity hospital, health care costs were the responsibility of the individual.

What does health care insurance have to do with health care costs? Its impact on health care costs has been, and remains to this day, absolutely enormous. When health insurance for individuals and families emerged as a means for corporations to escape wage freezes and to attract and retain employees after World War II, almost overnight a great pool of money became available to pay for health care. Money, as a result of the availability of billions of dollars from health insurance pools, encouraged an innovative America to increase medical research efforts. More Americans became insured not only through private, employer sponsored health insurance but through increased government funding that created Medicare and Medicaid (1965). In addition funding became available for expanded veterans health care benefits. Finding a cure for almost anything has consequently become very lucrative. This is also the primary reason for the vast array of treatments we have available today.

I do not wish to convey that medical innovations are a bad thing. Think of the tens of millions of lives that have been saved, extended, enhanced and made more productive as a result. But with a funding source grown to its current magnitude (hundreds of billions of dollars annually) upward pressure on health care costs are inevitable. Doctor’s offer and most of us demand and get access to the latest available health care technology in the form of pharmaceuticals, medical devices, diagnostic tools and surgical procedures. So the result is that there is more health care to spend our money on and until very recently most of us were insured and the costs were largely covered by a third-party (government, employers). Add an insatiable and unrealistic public demand for access and treatment and we have the “perfect storm” for higher and higher health care costs. And by and large the storm is only intensifying.

At this point, let’s turn to the key questions that will lead us into a review and hopefully a better understanding of the health care reform proposals in the news today. Is the current trajectory of U.S. health care spending sustainable? Can America maintain its world competitiveness when 16%, heading for 20% of our gross national product is being spent on health care? What are the other industrialized countries spending on health care and is it even close to these numbers? When we add politics and an election year to the debate, information to help us answer these questions become critical. We need to spend some effort in understanding health care and sorting out how we think about it. Properly armed we can more intelligently determine whether certain health care proposals might solve or worsen some of these problems. What can be done about the challenges? How can we as individuals contribute to the solutions?

The Obama health care plan is complex for sure – I have never seen a health care plan that isn’t. But through a variety of programs his plan attempts to deal with a) increasing the number of American that are covered by adequate insurance (almost 50 million are not), and b) managing costs in such a manner that quality and our access to health care is not adversely affected. Republicans seek to achieve these same basic and broad goals, but their approach is proposed as being more market driven than government driven. Let’s look at what the Obama plan does to accomplish the two objectives above. Remember, by the way, that his plan was passed by congress, and begins to seriously kick-in starting in 2014. So this is the direction we are currently taking as we attempt to reform health care.

Through insurance exchanges and an expansion of Medicaid,the Obama plan dramatically expands the number of Americans that will be covered by health insurance.

To cover the cost of this expansion the plan requires everyone to have health insurance with a penalty to be paid if we don’t comply. It will purportedly send money to the states to cover those individuals added to state-based Medicaid programs.

To cover the added costs there were a number of new taxes introduced, one being a 2.5% tax on new medical technologies and another increases taxes on interest and dividend income for wealthier Americans.

The Obama plan also uses concepts such as evidence-based medicine, accountable care organizations, comparative effectiveness research and reduced reimbursement to health care providers (doctors and hospitals) to control costs.
The insurance mandate covered by points 1 and 2 above is a worthy goal and most industrialized countries outside of the U.S. provide “free” (paid for by rather high individual and corporate taxes) health care to most if not all of their citizens. It is important to note, however, that there are a number of restrictions for which many Americans would be culturally unprepared. Here is the primary controversial aspect of the Obama plan, the insurance mandate. The U.S. Supreme Court recently decided to hear arguments as to the constitutionality of the health insurance mandate as a result of a petition by 26 states attorney’s general that congress exceeded its authority under the commerce clause of the U.S. constitution by passing this element of the plan. The problem is that if the Supreme Court should rule against the mandate, it is generally believed that the Obama plan as we know it is doomed. This is because its major goal of providing health insurance to all would be severely limited if not terminated altogether by such a decision.

As you would guess, the taxes covered by point 3 above are rather unpopular with those entities and individuals that have to pay them. Medical device companies, pharmaceutical companies, hospitals, doctors and insurance companies all had to “give up” something that would either create new revenue or would reduce costs within their spheres of control. As an example, Stryker Corporation, a large medical device company, recently announced at least a 1,000 employee reduction in part to cover these new fees. This is being experienced by other medical device companies and pharmaceutical companies as well. The reduction in good paying jobs in these sectors and in the hospital sector may rise as former cost structures will have to be dealt with in order to accommodate the reduced rate of reimbursement to hospitals. Over the next ten years some estimates put the cost reductions to hospitals and physicians at half a trillion dollars and this will flow directly to and affect the companies that supply hospitals and doctors with the latest medical technologies. None of this is to say that efficiencies will not be realized by these changes or that other jobs will in turn be created but this will represent painful change for a while. It helps us to understand that health care reform does have an effect both positive and negative.

Finally, the Obama plan seeks to change the way medical decisions are made. While clinical and basic research underpins almost everything done in medicine today, doctors are creatures of habit like the rest of us and their training and day-to-day experiences dictate to a great extent how they go about diagnosing and treating our conditions. Enter the concept of evidence-based medicine and comparative effectiveness research. Both of these seek to develop and utilize data bases from electronic health records and other sources to give better and more timely information and feedback to physicians as to the outcomes and costs of the treatments they are providing. There is great waste in health care today, estimated at perhaps a third of an over 2 trillion dollar health care spend annually. Imagine the savings that are possible from a reduction in unnecessary test and procedures that do not compare favorably with health care interventions that are better documented as effective. Now the Republicans and others don’t generally like these ideas as they tend to characterize them as “big government control” of your and my health care. But to be fair, regardless of their political persuasions, most people who understand health care at all, know that better data for the purposes described above will be crucial to getting health care efficiencies, patient safety and costs headed in the right direction.

A brief review of how Republicans and more conservative individuals think about health care reform. I believe they would agree that costs must come under control and that more, not fewer Americans should have access to health care regardless of their ability to pay. But the main difference is that these folks see market forces and competition as the way to creating the cost reductions and efficiencies we need. There are a number of ideas with regard to driving more competition among health insurance companies and health care providers (doctors and hospitals) so that the consumer would begin to drive cost down by the choices we make. This works in many sectors of our economy but this formula has shown that improvements are illusive when applied to health care. Primarily the problem is that health care choices are difficult even for those who understand it and are connected. The general population, however, is not so informed and besides we have all been brought up to “go to the doctor” when we feel it is necessary and we also have a cultural heritage that has engendered within most of us the feeling that health care is something that is just there and there really isn’t any reason not to access it for whatever the reason and worse we all feel that there is nothing we can do to affect its costs to insure its availability to those with serious problems.

OK, this article was not intended to be an exhaustive study as I needed to keep it short in an attempt to hold my audience’s attention and to leave some room for discussing what we can do contribute mightily to solving some of the problems. First we must understand that the dollars available for health care are not limitless. Any changes that are put in place to provide better insurance coverage and access to care will cost more. And somehow we have to find the revenues to pay for these changes. At the same time we have to pay less for medical treatments and procedures and do something to restrict the availability of unproven or poorly documented treatments as we are the highest cost health care system in the world and don’t necessarily have the best results in terms of longevity or avoiding chronic diseases much earlier than necessary.

I believe that we need a revolutionary change in the way we think about health care, its availability, its costs and who pays for it. And if you think I am about to say we should arbitrarily and drastically reduce spending on health care you would be wrong. Here it is fellow citizens – health care spending needs to be preserved and protected for those who need it. And to free up these dollars those of us who don’t need it or can delay it or avoid it need to act. First, we need to convince our politicians that this country needs sustained public education with regard to the value of preventive health strategies. This should be a top priority and it has worked to reduce the number of U.S. smokers for example. If prevention were to take hold, it is reasonable to assume that those needing health care for the myriad of life style engendered chronic diseases would decrease dramatically. Millions of Americans are experiencing these diseases far earlier than in decades past and much of this is due to poor life style choices. This change alone would free up plenty of money to handle the health care costs of those in dire need of treatment, whether due to an acute emergency or chronic condition.

Let’s go deeper on the first issue. Most of us refuse do something about implementing basic wellness strategies into our daily lives. We don’t exercise but we offer a lot of excuses. We don’t eat right but we offer a lot of excuses. We smoke and/or we drink alcohol to excess and we offer a lot of excuses as to why we can’t do anything about managing these known to be destructive personal health habits. We don’t take advantage of preventive health check-ups that look at blood pressure, cholesterol readings and body weight but we offer a lot of excuses. In short we neglect these things and the result is that we succumb much earlier than necessary to chronic diseases like heart problems, diabetes and high blood pressure. We wind up accessing doctors for these and more routine matters because “health care is there” and somehow we think we have no responsibility for reducing our demand on it.

It is difficult for us to listen to these truths but easy to blame the sick. Maybe they should take better care of themselves! Well, that might be true or maybe they have a genetic condition and they have become among the unfortunate through absolutely no fault of their own. But the point is that you and I can implement personalized preventive disease measures as a way of dramatically improving health care access for others while reducing its costs. It is far better to be productive by doing something we can control then shifting the blame.

There are a huge number of free web sites available that can steer us to a more healthful life style. A soon as you can, “Google” “preventive health care strategies”, look up your local hospital’s web site and you will find more than enough help to get you started. Finally, there is a lot to think about here and I have tried to outline the challenges but also the very powerful effect we could have on preserving the best of America’s health care system now and into the future. I am anxious to hear from you and until then – take charge and increase your chances for good health while making sure that health care is there when we need it.

New feature on Facebook to prevent fake news

Social media Facebook has taken a new initiative to stop the spread of fake news. To this end, the company owned by Meter has launched several new tools. Not only will the new feature help identify fake information; This will also reduce the work pressure of Facebook group admins.

This will allow admins to perform group tasks better. One of the new tools launched by Facebook is ‘Admin Assist’. The tool will automatically help group admins to cancel posts with fake information.

Also, the ‘Mute’ tool has been further enhanced with the name Suspend or Cancel.

This feature allows group admins and moderators to temporarily exclude members from group posts, feedback, comments and chats. The new tool will automatically check if there are any instances of Facebook users sharing fake news. Thus, even if that member wants, he will not be able to join the group.

Facebook Tool will automatically cancel the request to join the group. The ‘Admin Home’ design tool has also been updated to the desktop version.

Added new layout for mobile phones. For admins, QR codes are automatically added to Facebook group ads. It lets users easily know the details of the group by scanning the KR code.

বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১

বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি, প্রকাশিত হয়েছে।বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল

BCC বাংলাদেশের কম্পিউটার ও তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক নিয়ন্ত্রক সংস্থা। এটি বাংলাদেশের তথ্য ও যোগাযোগ

প্রযুক্তি অধিদপ্তরের অধীনে একটি স্বায়ত্বশাসিত সংস্থা।সম্প্রতি প্রকাশিত বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল চাকরি

বিজ্ঞপ্তির যাবতীয় তথ্য নিচে তুলে ধরা হল।আগ্রহী ও যোগ্য ব্যক্তিদের আবেদন করার জন্য আহব্বান করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

১।পদের নামঃহিসাব রক্ষক

  • পদের সংখ্যাঃ ০১ টি।
  • শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ বাণিজ্য বিভাগে স্নাতক/স্নাতোকোত্তর
  • বেতনঃ সরকারি বেতন কাঠামো অনুযায়ী

সরকারি বেসরকারি সব ধরনের চাকরির খবর সবার আগে পাবেন এই ওয়েবসাইটে ukhealthz.xyz

তাই যেকোনো ধরনের চাকরির খবর পেতে ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইটে ।

বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য দেখতে নিচের ছবিটি লক্ষ্য করুন

বিস্তারিত তথ্য দেখুন নিচের ছবিতে

জব সার্কুলারের অন্যান্য তথ্য

  • প্রতিষ্ঠানের নামঃ বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল
  • চাকরির ধরণঃ স্থায়ী – পূর্ণকালীন চাকরি
  • চাকরির ক্যাটাগরিঃ সরকারি চাকরি
  • আবেদনকারীর লিঙ্গঃ পুরুষ /মহিলা উভয়ই আবেদন করতে পারবেন।
  • আবেদনের বয়স সীমাঃ বিস্তারিত বিজ্ঞপ্তি থেকে দেখে নিন
  • অন্যান্য সুযোগ সুবিধাঃ প্রতিষ্ঠানের বিধি মোতাবেক
  • প্রতিষ্ঠানের ধরণঃ সরকারি প্রতিষ্ঠান
  • শেষ তারিখঃ ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০
  • আবেদনের নিয়মঃ http://erecruitment.bcc.gov.bd

আবেদনের নিয়াম ও শর্তাবলীনিয়ােগ বিজ্ঞপ্তি বাংলাদেশ

কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি)-এর রাজস্ব খাতে নিম্নবর্ণিত শূন্য পদসমূহ পূরণের লক্ষ্যে বাংলাদেশের প্রকৃত নাগরিকদের নিকট হইতে দরখাস্ত আহবান করা যাইতেছে:

১। সকল প্রার্থীকে অনলাইনে সাইটের মাধ্যমে আগামী ২৪/১০/২০২০ তারিখ রাত ১১:৫৯ মিঃ এর মধ্যে আবেদন করিতে হইবে।

২। উক্ত পদসমূহের জন্য ২০/১০/২০২০ তারিখে প্রার্থীর বয়সসীমা ১৮-৩০ বছর হইতে হবে; তবে শারীরিক প্রতিবন্ধী ও মুক্তিযেদ্ধিা/মুক্তিযােদ্ধাদের সন্তানদের ক্ষেত্রে বয়সসীমা ১৮-৩২ বছর বয়স প্রমাণের ক্ষেত্রে এফিডেভিট গ্রহণযােগ্য নহে।

৩। ক্রমিক নং ১ থেকে ০৬ পদের প্রার্থীদের ৩০০ (তিনশত) টাকা, ক্রমিক নং ০৭ থেকে ১১ পদের প্রার্থীদের ২০০ (দুইশত) টাকা DBBL Mobile Banking/bKash-এর মাধ্যমে অনলাইনে (বিস্তারিত অনলাইন ফর্মে পাওয়া যাবে) পরিশােধ করিতে হইবে।

৪। নিয়ােগের ক্ষেত্রে বিসিসি’র চাকুরি প্রবিধানমালা ও প্রযােজ্য ক্ষেত্রে সরকারের বিদ্যমান বিধি-বিধান অনুসরণ করা হইবে।

৫। একই ক্রমিক নম্বরের সকল পদের যেকোন একটি পদে আবেদন করিলে, উক্ত ক্রমিক নম্বরের সকল পদে আবেদন করা হইয়াছে মর্মে বিবেচিত হইবে।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাধ্যমে বাংলাদেশ

কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) বাংলাদেশ সরকার প্রতিশ্রুত রূপকল্প ২০২১: ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে অগ্রণী ভূমিকা পালনকারী অন্যতম প্রতিষ্ঠান। বাংলাদেশে কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ক্ষেত্রে দেশকে অগ্রগামী করে তুলতে ও ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে নানাবিধ উদ্যোগ গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করে আসছে।

রূপকল্পঃ
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির বহুমুখী ব্যবহার নিশ্চিত করার মাধ্যমে জ্ঞানভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠায় সহায়তা প্রদান।

অভিলক্ষ্যঃ
স্বচ্ছতা নিরপত্তা এবং দক্ষতার সাথে সরকারি সেবা উন্নয়ন ও প্রদানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির গবেষণা ও উন্নয়নের মাধ্যমে দেশের ডিজিটাইজেশন এবং আইটি শিল্পের রপ্তানি ও কর্মসংস্থানে জাতীয় লক্ষ্য অর্জনে কার্যক্রম বাস্তবায়ন।

শিল্প মন্ত্রণালয় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত ২০২১

শিল্প মন্ত্রণালয় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত

শিল্প মন্ত্রণালয় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত, হয়েছে শিল্প মন্ত্রণালয় হচ্ছে বাংলাদেশ সরকারের একটি মন্ত্রণালয়।

এই মন্ত্রণালয়টি সাধারনত শিল্প খাতে উন্নয়ন, প্রসারন, বাংলাদেশের শিল্পখাতের সহনীয় উন্নয়ন সংশ্লিষ্ট নতুন নীতি,

কৌশল এসবের দায়িত্বপ্রাপ্ত।সম্প্রতি প্রকাশিত শিল্প মন্ত্রালয় চাকরি বিজ্ঞপ্তি র যাবতীয় তথ্য নিচে তুলে ধরা হল।

শিল্প মন্ত্রণালয় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত

১।পদের নামঃ খন্ডকালীন চিকিৎসক

  • শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ কোন স্বীকৃত মেডিকেল কলেজ হতে এম.বি.বি.এস ডিথ্রি থাকতে হবে।
  • বিএমডিসির রেজিস্ট্রেশন থাকতে হবে। তবে উচ্চতর ডিপ্রিধারীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।
  • বেতনঃ মাসিক ১০,০০০ টাকা
  • এছাড়া উপব্যাবস্থাপনা পরিচালক, ও সহকারি ব্যাবস্থাপক পদের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি নিচের দেখুন।

সরকারি বেসরকারি সব ধরনের চাকরির খবর সবার আগে পাবেন এই ওয়েবসাইটে ukhealthz.xyz

তাই যেকোনো ধরনের চাকরির খবর পেতে ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইটে।

শিল্প মন্ত্রণালয় জব সার্কুলার সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য দেখতে নিচের ছবিটি লক্ষ্য করুন

বিস্তারিত তথ্য দেখুন নিচের ছবিতে

আবেদনের শেষ তারিখঃ ২০ ডিসেম্বর ২০২১

আবেদনের নিয়মঃ www.dpdt.teletalk.com.bd

শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীনে প্রধান বয়লার পরিদর্শকের কার্যালয়ে ‘ড্রাইভার’ পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ২০ ডিসেম্বর পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

পদের নামঃ ড্রাইভার

  • পদসংখ্যাঃ ০২ জন
  • শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ অষ্টম শ্রেণি/জেএসসি
  • দক্ষতাঃ বৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স
  • অভিজ্ঞতা: হালকা ও ভারি যান চালনায় অভিজ্ঞ
  • বেতনঃ ৯৩০০-২২,.৪৯০ টাকা
  • চাকরির ধরনঃ অস্থায়ী
  • প্রার্থীর ধরনঃ নারী-পুরুষ

আবেদনের শর্তাবলীঃ

১।নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লিখিত ন্যুনতম শিক্ষাগত যোগ্যতার অতিরিক্ত শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকলে তা আবেদনে উল্লেখ করতে হবে, অন্যথায় পরবর্তীতে উক্ত শিক্ষাগত যোগ্যতা কোন ক্রমেই প্রহণ করা হবে না।

২।এস.এস.সি বা সমমান, এইচ.এস.সি বা সমমান এবং অনুমোদিত বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক প্রদত্ত সিজিপিএ তথা প্রচলিত গ্রেডিং পদ্ধতির পূর্বের বিভাগ/শ্রেণীর সমতাকরণ সংক্রান্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে জারীকৃত প্রজ্ঞাপন অনুসরণ করা হবে।

৩।চার বছর মেয়াদি স্নাতক/স্নাতকোত্তর (সম্মান) ডিগ্রিধারী প্রার্থীদের জমাকৃত সনদ/মার্কশিট/টেস্টিমোনিয়ালে যদি ৪ (চার) বছর মেয়াদি স্নাতক (সম্মান) উল্লেখ না থাকে তবে অর্জিত ডিগ্রি ৪ বছর মেয়াদি স্নাতক/স্নাতকোত্তর সম্মান মর্মে বিভাগীয় প্রধান/পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক/রেজিস্ট্রার কর্তৃক প্রদত্ত প্রত্যয়নপত্রের সত্যায়িত কপি আবেদনপত্রের সঙ্গে অবশ্যই জমা দিতে হবে। অন্যথায় তাদের অর্জিত ডিগ্রি ৩ (তিন) বছর মেয়াদি হিসেবে গণ্য করা হবে।

শিল্প মন্ত্রণালয় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত

৪।প্রার্থীর চাকরির অভিজ্ঞতা প্রযোজ্য ক্ষেত্রে/ লিড অডিটর ও ইন্টারনাল অডিটর কোর্স (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) সংক্রান্ত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রদত্ত প্রতায়ন পত্রপ্রমাণক দাখিল করতে হবে।

৫।লিখিত পরীক্ষার সময় প্রয়োজনীয় কলম, রাবার, পেন্সিল, সাধারণ ক্যালকুলেটর ইত্যাদি সঙ্গে আনতে পারবে। অন্য কোন ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস, ব্যবহার করা যাবে না। প্রার্থীর অনুকূলে প্রদেয় প্রবেশপত্রে লিপিবদ্ধ নিমমাবলী অনুসরণ করা প্রার্থীর জন্য বাধ্যতামূলক।

বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভের পূর্বে সাবেক

পাকিস্তান কেন্দ্রীয় সরকারের শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীন প্রাদেশিক রাজধানী ঢাকায় বানিজ্য ও শিল্প ডিপার্টমেন্ট এর মাধ্যমে শিল্প সম্পর্কিত কর্মকান্ড পরিচালিত হতো। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালে শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় নামে একটি মন্ত্রণালয় গঠন করা হয়। পরবর্তীতে শিল্প ও বাণিজ্য দু’টি আলাদা মন্ত্রণালয় হিসেবে আত্বপ্রকাশ করে। অতঃপর শিল্প মন্ত্রণালয়ের কর্মপরিধিভুক্ত পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয়, বিনিয়োগ বোর্ড, প্রাইভেটাইজেশন কমিশনও শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে পৃথক হয়ে যায়। শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীন বর্তমানে ৪টি সংস্থা, ৬টি দপ্তর/অধিদপ্তর এবং একটি বোর্ড কাজ করছে।

দৃষ্টিঃ শিল্প উন্নত মধ্য আয়ের দেশ।

মিশনঃ উপযুক্ত শিল্প নীতিমালা প্রণয়ন, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সংস্থাগুলি সংস্কার ও সংস্কার, এসএমই, মাইক্রো এবং কুটির শিল্প বিকাশ, পণ্যগুলির মান এবং বৌদ্ধিক সম্পত্তির অধিকার সংরক্ষণ এবং উত্পাদনশীলতা বৃদ্ধির মাধ্যমে শিল্পায়ন ত্বরান্বিত করা।

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি, প্রকাশিত হয়েছে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন নিয়োগ

সংক্ষেপে বিএডিসি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের কৃষি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন একটি স্বায়ত্বশসিত প্রতিষ্ঠান

যা তৎকালীন “পূর্বপাকিস্তান কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন” হিসেবে কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন অধ্যাদেশ, ১৯৬১

এর মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত হয়।সম্প্রতি প্রকাশিত বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশোন চাকরি বিজ্ঞপ্তি র যাবতীয় তথ্য নিচে

তুলে ধরা হল।আগ্রহী ও যোগ্য ব্যক্তিদের বাংলাদেশের প্রকৃত নাগরিক হওয়া শর্তে আবেদন করার জন্য আহব্বান হচ্ছে।

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

১।পদের নামঃ সহকারী হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা/সহকারী নিরীক্ষণ কর্মকর্তা/উচ্চতর গুদাম রক্ষক/অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক

  • পদের সংখ্যাঃ ১০৫ টি।
  • শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ স্নাতক
  • বেতনঃ সরকারি বেতন কাঠামো অনুযায়ী

সরকারি বেসরকারি সব ধরনের চাকরির খবর সবার আগে পাবেন এই ওয়েবসাইটে ukhealthz.xyz

তাই যেকোনো ধরনের চাকরির খবর পেতে ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইটে ।

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন জব সার্কুলার সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য দেখতে নিচের ছবিটি লক্ষ্য করুন

বিস্তারিত তথ্য দেখুন নিচের ছবিতে

সময়সীমাঃ ২০ ডিসেম্বর ২০২১

আগ্রহী প্রার্থীরা অনলাইনেঃ  http://badc.teletalk.com.bd

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন ভিশন ও মিশন

ভিশনঃ
মানসম্পন্ন কৃষি উপকরণ যোগান ও দক্ষ সেচ ব্যবস্থাপনা

মিশনঃ
উচ্চ ফলনশীল বিভিন্ন ফসলের বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও সরবরাহ বৃদ্ধি করা, সেচ প্রযুক্তি উন্নয়ন, ভূ-পরিস্থ পানির সর্বোত্তম ব্যবহার, জলাবদ্ধতা দূরীকরণের মাধ্যমে সেচ দক্ষতা ও সেচকৃত এলাকা বৃদ্ধি এবং কৃষক পর্যায়ে মানসম্পন্ন সার সারবরাহ করা।

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন বাংলাদেশ সরকারে

একটি বড় সংস্থা। এই সংস্থা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন স্থায়ী এবং অস্থায়ী চাকরির বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে থাকে। তাই আপনি যদি সরকারি চাকরি খুজতে থাকেন বা এই অধিদপ্তরে ক্যারিয়ার গড়তে চান তাহলে বিজ্ঞপ্তি অনুসারে আবেদন করুন এবং নিজেকে একজন দক্ষ ও যোগ্য প্রার্থী হিসাবে গড়ে তুলুন।

আমাদের সাইটিতে নিয়মিত চাকরির খবর

২০২১ পেতে এবং সকল, সরকারি ও সরকারী চাকরির খবর পাবেন সাথেক চাকরির খবর । প্রথম আলো পত্রিকায় যে নিয়োগ গুলো প্রকাশত হয় সেই গুলো ও আমাদের সাইটে পাবেন। এছাড়াও আরও অন্য পত্রিকা যেমন চাকরির বাজার আজকের চাকরির খবর,চাকরির ডাক, আজকের চাকরির পত্রিকা ও চাকরির পত্রিকা আজকের সকল নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি আমাদের সাইটে পাবেন । তাই অবশ্যই নতুন নতুন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১,নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি 2021 ও চাকরির খবর পত্রিকা আপডেট পেতে আমাদের সাইটি ভিজিট করুন ।

বিশ্ব অর্থনীতিতে প্রধান ভূমিকা এবং বাংলাদেশে শুধু পরিকল্পনা

বিশ্ব অর্থনীতিতে প্রধান ভূমিকা এবং বাংলাদেশে শুধু পরিকল্পনা

বিশ্ব অর্থনীতিতে প্রধান ভূমিকা এবং বাংলাদেশে শুধু পরিকল্পনা, বঙ্গবন্ধুর বর্ণনা দিতে গিয়ে কিউবার বিপ্লবী

নেতা ফিদেল কাস্ত্রো বলেন, “আমি হিমালয় দেখিনি, কিন্তু শেখ মুজিবকে দেখেছি। ব্যক্তিত্ব ও সাহসিকতায়

তিনি হিমালয়ের মতো। একইভাবে বাংলাদেশ সফরে আসা বিশ্ববিখ্যাত পর্যটক ইবনে বতুতা আবিষ্কার করেন।

বাংলার মাটি, ফসল ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্য।তাঁর ‘রিহালা’ গ্রন্থে এদেশের প্রকৃতি বর্ণনা করতে গিয়ে তিনি

বারবার বাংলাদেশ ভ্রমণের চেষ্টা করেছেন।তবে বর্তমানে বিদেশি পর্যটকের সংখ্যা বা তাদের ধারণা সম্পর্কে জানতে

চাইলে এই দেশ, তখনকার বাংলার সৌন্দর্য নিয়ে আফসোস করে।যেমনটা হয়েছিল ২০১৬ সালের পর্যটন

বছরে। ১০ লাখ বিদেশি পর্যটক আনার ঘোষণা দিয়েও কোনো লাভ হচ্ছে না, যা ব্যর্থতার পাল্লা

ক্রমেই ভারী করে তুলছে।ওয়ার্ল্ড ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম কাউন্সিলের মতে, বাংলাদেশের জিডিপিতে পর্যটনের

অবদান ২ দশমিক ২ শতাংশ।

আরও নতুন নিউস পেতে আমাদের সাইট:ukhealthz.xyz

বিশ্ব অর্থনীতিতে প্রধান ভূমিকা এবং বাংলাদেশে শুধু পরিকল্পনা

কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে এ খাতের অবদান ১ দশমিক ৬ শতাংশ। ২০১৭ সালে পরোক্ষ কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে, মোট কর্মসংস্থানের ৩.৬ শতাংশ এসেছে পর্যটন খাত থেকে। ২০১৯ সালে সাড়ে ছয় লাখ বাংলাদেশি বিভিন্ন কাজে বিদেশে গেছেন। এর বিপরীতে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালে মাত্র ২ লাখ ৭ হাজার ৬০৬ জন বিদেশি পর্যটক এদেশে এসেছেন।কিন্তু প্রতি বছর ১০০ কোটির বেশি পর্যটক সারা বিশ্বে ভ্রমণ করেন। বিদেশে গিয়ে বাংলাদেশিদের খরচ হচ্ছে অন্তত সাড়ে ছয় হাজার কোটি টাকা। এর বিপরীতে বাংলাদেশে আসছে মাত্র ১৩০০ কোটি টাকা। বাংলাদেশের মোট রপ্তানি আয়ে পর্যটন খাতের অবদান শূন্য দশমিক ৪৬ শতাংশ। যেখানে আমাদের ৯টি বৈশ্বিক নির্দেশক পণ্য রয়েছে, কিন্তু যথাযথ ব্যবস্থার অভাবে আমরা সেগুলো রপ্তানি করতে পারছি না। এসব পণ্যের কথা মাথায় রেখে বাংলাদেশের বিশ্বে নতুন করে পরিচিত হওয়ার সম্ভাবনা ধীরে ধীরে কমে আসছে।

ভারতে বিদেশী পর্যটকদের সংখ্যা বৃদ্ধির

উপর একটি সমীক্ষা দেখায় যে উন্নতি করতে হলে এই সেক্টরটিকে আমলাতন্ত্রের হাত থেকে বের করে নিতে হবে।কারণ, পর্যটন নিয়ে আপনার আলাদা আগ্রহ ও জ্ঞান থাকতে হবে। এটা ঐতিহ্যবাহী আমলাদের দ্বারা পরিচালিত হতে পারে না। ভারতের পর্যটন মন্ত্রক এখন মূলত গবেষক এবং বিশেষজ্ঞদের নিয়ে গঠিত। বাংলাদেশেও এখন একই কাজ করতে হবে।পর্যটন মন্ত্রণালয়, কর্পোরেশন, বোর্ড—সব প্রতিষ্ঠানই আমলাদের দ্বারা পরিচালিত হয়। এখানে পর্যটন বিশেষজ্ঞদের কোনো প্রতিনিধিত্ব নেই। বাংলাদেশে এত দিন একটি পর্যটন আইন, জাতীয় পর্যটন ডেটাবেস, পর্যটন স্যাটেলাইট অ্যাকাউন্ট, মানসম্পন্ন পর্যটন পরিষেবা, পণ্য উন্নয়ন ও গবেষণা সেল নেই।সারা বিশ্বে পর্যটন চলে পর্যটনের নিয়ম অনুযায়ী আর এদেশে পর্যটন চলে আমলাদের ইচ্ছা অনুযায়ী। ফলে ব্যবস্থাপনা নেই, শৃঙ্খলা নেই।

পর্যটনের উন্নয়নে কিছু করতে গিয়ে

দেখা যায় ১৯টি মন্ত্রণালয়ের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ সম্পৃক্ততা।মহাপরিকল্পনা তৈরি করতে গিয়ে নানা বাধার সম্মুখীন হতে হয়।এমনকি মহাপরিকল্পনার আশায় স্বল্পমেয়াদি পরিকল্পনাও সঠিকভাবে বাস্তবায়ন হচ্ছে না। করোনা বিপর্যয় থেকে পর্যটনকে রক্ষা করতে সরকার ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজ থেকে ১৪ হাজার কোটি টাকার ক্ষতি কেউ পায়নি। পর্যটন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান সরকারের কাছে সহায়তার দাবি জানালেও বাস্তবে কেউ সহজ শর্তে ঋণ নিতে পারছে না বলে জানান তোবের। এ অবস্থায় ছোট ট্যুর অপারেটরদের টিকে থাকা অসম্ভব হয়ে পড়েছে।এ খাত থেকে সরকারের বিপুল মুনাফার সম্ভাবনা থাকলেও তা বরাবরই অবহেলিত। পর্যটন শিল্পের বিকাশের পথে পাহাড়ি সমস্যা মোকাবিলা করে এগিয়ে যেতে হবে। আমাদের দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা খুব একটা সুবিধাজনক না হওয়ায় ভ্রমণ খরচ তুলনামূলক বেশি হওয়ায় আমরা পর্যটকদের আকৃষ্ট করতেও ব্যর্থ হচ্ছি।

 

 

এক সময় হুমায়ূনের স্মৃতিতে

এক সময় হুমায়ূনের স্মৃতিতে

এক সময় হুমায়ূনের স্মৃতিতে, শব্দের জাদুকর হুমায়ূন আহমেদ বৃষ্টির দিনে সবাইকে ছেড়ে আকাশে মেঘের

কাছে চলে গেছেন। শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী তাকে রাজধানী থেকে অদূরে গাজীপুরের প্রত্যন্ত এলাকা পিরুজালীতে

প্রিয় নুহাশপল্লীতে একটি মাটির বিছানায় শায়িত করা হয়।করোনার নিষেধাজ্ঞার আগেও আমার

প্রিয় লেখকের স্মৃতির পাতায় ফিরে আসার প্রবল ইচ্ছা ছিল। যেখানে পাখি, গাছ, ইট, পাথর আর টিনের

ঘ্রাণ জড়িয়ে আছে প্রতিটি স্থাপনার সঙ্গে। হুমায়ূন আহমেদের স্মৃতির সঙ্গে জড়িয়ে থাকা নুহাশপল্লী সেই ভাবনা

থেকেই ফিরে আসেন।পরিকল্পনা অনুযায়ী সকালে বাসে করে সাভার ছেড়েছি। যানজট, ধুলাবালি আর

উঁচু-নিচু রাস্তায় দুই ঘণ্টায় দুটি ভিন্ন যানবাহনের যাত্রা শেষে পৌঁছে গেলাম হোতাপাড়া বাসস্ট্যান্ডে।

সেখান থেকে হুমায়ূন আহমেদের বাড়ির সামনে পিরুজালীর সিএনজি চালক জসিম উদ্দিনের গাড়িতে।

আরও নতুন নিউস পেতে আমাদের সাইট:ukhealthz.xyz

এক সময় হুমায়ূনের স্মৃতিতে

দুপুরে কাঠবিড়ালিটিকে সিএনজি চালিত অটোরিকশা থেকে নামতে দেখা যায়। মনে হচ্ছিল সে আমার সাথে লুকোচুরি খেলছে। নুহাশপল্লীর প্রধান ফটক মাত্র কয়েক ধাপ দূরে। ২০০ টাকা দিয়ে টিকিট কিনে হুমায়ূনের স্মৃতিতে প্রবেশ করলাম।একটু এগোলেই মনে হয় হুমায়ূন আহমেদের একটি ম্যুরাল স্বাগত জানিয়ে বসে আছে। উল্টো দিকে এক মা ছোট্ট শিশুর হাত ধরে আছেন। সারাদিন সেই মা-ছেলেকে দেখতে কেমন লাগে হুমায়ূন! হুমায়ূনের নুহাশপল্লী যাত্রার কথা ভাবতে থাকে।পাকা সড়কে শ্যাওলার স্তর জমে আছে। চেয়ার-টেবিল বকুলতলায় বসে সেই পথে হাঁটছি। সাদা জায়গায় বসে সামনে দুজনের দেখা হলো। জীবিত নয়, পাথরের মূর্তির আকারে তার সামনে ফলের ঝুড়ি নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে এক কিশোরী। যেন ভোরের আগে নিজের হাতে নাস্তা আনছেন। পাশেই পিঠে শুয়ে আছে একটি শিশু। বইটা হাতে দিলেই সে আ আ আ আ বি বলতে শুরু করবে।

কিছুক্ষণ বসে থাকার পর হাঁটা শুরু

করবে। কয়েক কদম দূরে দুপাশে বড় বড় তালগাছ।কাছেই স্বপ্নের গাছে মোড়ানো ছোট্ট পথ। পথের শেষে ছোট মাছের পুকুর। পুকুর পাড়ে আরেকটা সাদা পরী দাঁড়িয়ে আছে। সে মাছ দেখছে!উল্টো দিকে বাঁদিকে একটা বড় কাঠের দাবার টুকরো। কিন্তু খেলার সময় কই!হাতে সময় খুব কম। পুরো যাত্রা দ্রুত শেষ করতে হবে, তাই এগিয়ে যান।দেখা হবে ‘বৃষ্টিবিলাসে’। কিছুক্ষণ হাঁটু গেড়ে বসে রইলাম। এই বাড়িতেই হুমায়ূনের সাহিত্য তৈরি হয়েছে! জীবনের অনেক রোদ-বৃষ্টি দেখেছি! বাড়ির সামনে বসা একজন কেয়ারটেকারকে জিজ্ঞেস করতেই তিনি বললেন, একটু এগোলেই রয়েছে ভেষজ বাগান, মারমেইড আর প্রিয় লীলাবতী দীঘি।ইট পাকা রাস্তায় ফিরে যাত্রা। বড় ক্যাকটাস কয়েক ধাপ দূরে। পাশে বসা শিশুর মূর্তি। অযত্নে হারিয়ে গেল কার হাত! তার পেছনে বড় পাহাড়!আমরা কাছে যেতেই একটি বিশাল দানব দেখতে পেলাম।

মারমেইডটি পাহাড়ের মতো দানবের

সামনে জলে বসে আছে। দুজন মুখোমুখি দাঁড়িয়ে! আরেকটু এগোতেই দেখা গেল শিশু প্রেমিক হুমায়ুনকে। একটি বিশালাকার ডাইনোসর, একটি সাপ দর্শনার্থীদের স্বাগত জানায়! এই ডাইনোসরের পাশেই রয়েছে হুমায়ূন আহমেদের ঔষধি গাছের প্রিয় বাগান। বাগানের সামনে লেখকের আবক্ষ মূর্তি।তারপর মৃত নবজাতক কন্যার লীলাবতী নামের পুকুরে যাত্রা। হুমায়ূনের যত্নে লেকের পাড় জড়িয়ে আছে। দিঘীর পাড়ে ‘ভূত বিলাস’ নামে বাংলো। সেখানে দাঁড়িয়ে লেকের মাঝখানে একটি ছোট দ্বীপ দেখতে পাবেন। লেখকের বেঁচে থাকার জন্য এখানে সঙ্গীতের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। দ্বীপের দিকে যাওয়া কাঠের পুলের কাঠামো নড়বড়ে। সেই পুল পেরিয়ে দ্বীপ যাত্রা। এই দ্বীপে বসে লেখক হুমায়ূন আহমেদ প্রচুর সাহিত্য রচনা করেছেন।দুপুর গড়িয়েছে, চারিদিকে নেমে এসেছে নিস্তব্ধ বিকেল। হিমুরার চারিদিকে হলুদাভ রঙ। সেই বিকেলে যদি হুমায়ূন আহমেদ হেরে যেতেন তাহলে কী ভাবতেন? তার লেখা গানটা মনে পড়ে।

নেত্রকোনার দুর্গাপুর একটি অনন্য পর্যটন কেন্দ্র

নেত্রকোনার দুর্গাপুর একটি অনন্য পর্যটন কেন্দ্র

নেত্রকোনার দুর্গাপুর একটি অনন্য পর্যটন কেন্দ্র, সুজলা-সুফলা, শস্য-শ্যামলা আমাদের অতুলনীয়

সৌন্দর্যের সবুজ ভূমি। স্বাধীনতা লাভের পর ধীরে ধীরে আমাদের দেশ গড়ে উঠেছে, যেখানে রয়েছে শত শত

নদী, অজস্র খাল-বিল, বিল, হাওর, পাহাড়। যেহেতু আজকের নিবন্ধটি দুর্গাপুরকে কেন্দ্র করে,

আমি কেবল এই জায়গাটি নিয়েই লিখব।বৈশিষ্ট্যগতভাবে, আমাদের টপোগ্রাফি তিনটি ভাগে বিভক্ত সাম্প্রতিক বন্যা

সমভূমি,  প্লাইস্টোসিন সোপান এবং টারশিয়ারি যুগের পাহাড়। প্রায় ৭৫ মিলিয়ন বছর আগে বাংলার কেন্দ্রস্থলে

যে পাহাড় ও শৈলশিরা গঠিত হয়েছিল তাদের আজ টারশিয়ারি পাহাড় বলা হয়। বর্তমানে দেশের দুটি

অঞ্চলেই সে সময়ের পাহাড় দেখা যায়: এক. উত্তর ও উত্তর-পূর্ব (ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা, হবিগঞ্জ,

মৌলভীবাজার, সিলেট), দুই. দক্ষিণ-পূর্ব (বান্দরবান, খাগড়াছড়ি, রাঙ্গামাটি, চট্টগ্রাম)।

আরও নতুন নিউস পেতে আমাদের সাইট:ukhealthz.xyz

নেত্রকোনার দুর্গাপুর একটি অনন্য পর্যটন কেন্দ্র

ভৌগোলিক পরিসংখ্যান অনুযায়ী, এই পাহাড়গুলো আমাদের দেশের মোট আয়তনের ১২ শতাংশ দখল করে আছে। ভূতাত্ত্বিক গঠন অনুসারে পাহাড়গুলোকে তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছে। এক. টিপসুরমা (সর্বোচ্চ এবং খাড়া), দুই. দুপিটিলা (মাঝারি উঁচু ও খাড়া) এবং তিন. দিহিং (সর্বনিম্ন পাহাড়)। সম্প্রতি, আমি এবং আমার বন্ধুরা দিহিং শ্রেণীর পাহাড়ে ভ্রমণ করছি, যাকে অনেকে টিলা নামে চেনেন। এটি নেত্রকোনার দুর্গাপুর অঞ্চলের একমাত্র টারশিয়ারি যুগের সাদা মাটির পাহাড়, যা একটি জনপ্রিয় পর্যটক আকর্ষণ।নেত্রকোনা সদর থেকে ৪৫ কিলোমিটার উত্তরে এই পাহাড়ি এলাকা। দুর্গাপুর ভারতের মেঘালয় রাজ্যের একটি ছোট শহর, যেটি গারো পাহাড়ের তীরে, সোমেশ্বরী নদীর তীরে অবস্থিত। এই শহরের তিনটি এলাকা পর্যটকদের কাছে খুবই বিখ্যাত- বিজয়পুর, বিরিশিরি ও রানীখং। ভারতের সোমেশ্বরী নদী এই তিনটি বিখ্যাত এলাকাকে বিভক্ত করেছে।

নদীর দক্ষিণ তীরে বিরিশিরি এবং

উত্তরে রাণীখং, বিজয়পুর। ১৯৮৬ সালে, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় বিশ্বের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সংস্কৃতির প্রচারের জন্য বিরিশিরিতে দেশের প্রথম স্বায়ত্তশাসিত উপজাতীয় সাংস্কৃতিক একাডেমি স্থাপন করে। সেই একাডেমিতে গারো, হাজং উপজাতির পাশাপাশি দূর-দূরান্ত থেকে অন্যান্য উপজাতিরা বিভিন্ন সময়ে অনুষ্ঠানে আসে, যেখানে তারা তাদের নিজস্ব সংস্কৃতি উপস্থাপন করে। ফলে দর্শনার্থীরা সহজেই এলাকার উপজাতিদের সংস্কৃতি, সামাজিকতা ও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড বুঝতে পারবেন।এরপর আছে রানিখং এলাকা। স্থানীয়রা জানায়, এই এলাকায় ‘খং-রানী’ নামে এক দানব বাস করত। এই দানবকে তখন সেখানে বসবাসরত গারো উপজাতিদের হাতে হত্যা করা হলে এলাকায় শান্তি প্রতিষ্ঠিত হয় এবং এলাকার নাম হয় রাণীখং। ১৯১০ সালে এই এলাকায় একটি গির্জা নির্মিত হয়েছিল, যা এখনও দৃশ্যমান। বিজয়পুরে বিজিবি ক্যাম্পে যাওয়ার পথে হাতের ডানে গির্জা চোখে পড়ল।

এ ছাড়া রানীখং এলাকায় বেশ কয়েকটি

খণ্ডিত পাহাড় রয়েছে। স্থানীয় জনগণের ভাষায় এই স্থানটির নাম ‘কমলাবাগান’ (এটি এখন নেই)।স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে জানা যায়, মোশতাক আহমেদ ২০০৮ সালে এ এলাকার এমপি ছিলেন। সে সময় তিনি উল্লেখিত স্থানে একটি বিশাল কমলার বাগান করেছিলেন। এ কারণে এখনও অনেকে জায়গাটিকে কমলাবাগান বলে থাকেন। কমলাবাগান থেকে একটু উত্তরে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের জিরো পয়েন্ট। বিনা অনুমতিতে ওই স্থানে যাওয়া নিষেধ থাকলেও ভুল করে চলে গিয়েছিলাম আসল প্রকৃতি দেখে। এক কথায়, একটি আকর্ষণীয় জায়গা। দুই সীমান্তে দুই পাহাড়, মাঝখানে বয়ে চলেছে সোমেশ্বরী নদী। দৃশ্যটি দেখে মনে হলো সোমেশ্বরী পাথুরে পাহাড়ের বুক চিরে বেরিয়ে এসে বাংলার বুকে নীরবে বয়ে চলেছে।তারপর রানীখং থেকে সোজা বিজয়পুর। এখানে দেখলাম দুর্গাপুরের আসল রহস্য, কেন এত দর্শনার্থী এখানে বেড়াতে আসেন।